এই বইয়ে বহির্জাগতিক সভ্যতা বিষয়ক সাহিত্য; ডাউনলোড করুন
এবং আপনার নিজের জন্যই না হয় একবার পড়ে দেখুন!

রায়েলিয়া আন্দোলন

ইলোহিম দূতাবাস

embassyরায়েলি আন্দোলন হচ্ছে একটি অলাভজনক আন্তর্জাতিক সংস্থা। এটা তাদেরই জন্য যারা সেচ্ছায় মানব সভ্যতার প্রকৃত সত্য সম্পর্কে জানতে চায় এবং মানুষকে জানাতে চায় ইলোহিমদের বার্তা সম্পর্কে। ইলোহিম- অতি উচ্চ বৈজ্ঞানিক ক্ষমতা ও প্রযুক্তি সম্পন্ন বহিঃজাগতিক সভ্যতা যারা পৃথিবীতে মানুষসহ সমস্ত প্রান সৃষ্টি করেছেন।
কিন্তু উক্ত জ্ঞান আর ইলোহিমদের বার্তা বিতরন করাই রায়েলি আন্দোলনের মুল উদ্দেশ্য নয়। আমাদের আরো কিছু উদ্দেশ্য সমুহের একটি হচ্ছে- আমাদের স্রষ্টা ইলোহিমদের পৃথিবীতে স্বাগত জানানোর জন্য একটি দূতাবাস তৈরী করা।
তাদের বার্তাবাহক রায়েলের মাধ্যমে ইলোহিমরা পৃথিবীতে নেমে এসে পৃথিবীর মানুষদের সাথে সাক্ষাৎ করার ইচ্ছে ব্যক্ত করেছেন। কিন্তু তারা তখনই পৃথিবীতে এসে আমাদের সাথে সাক্ষাৎ করবেন যখন পৃথিবীতে তাদের স্বাগত জানানোর জন্য পর্যাপ্ত সংখ্যক তাদের সমর্থক থাকবে, তাই তারা বলেছেন প্রথমে আমরা যেন আমাদের ইচ্ছেটা প্রকাশ করি। তাই তাদের স্বাগত জানানোর জন্য আমাদের একটি উপযুক্ত দূতাবাস তৈরী করতে হবে।

এই দূতাবাসের ডিজাইন হতে পারে অতি প্রাচীন কালের পবিত্র উপাসনালয়গুলির আদলে। ইলোহিমের বর্ননানুসারে এই দূতাবাসটি হতে হবে কোন প্রাকৃতিক স্থানে। এবং এই দুতাবাস তৈরীর মাধ্যমে আমরা প্রমান করতে পারি যে আমরা ইলোহিমদের সাথে সাক্ষা‍ৎ করতে প্রস্তুত।

(বিস্তারিত পরিকল্পনা এবং দুতাবাসের বৈশিষ্ট্য জানতে ভিজিট করুনঃ www.ElohimEmbassy.org. [নির্মানাধীন])

রায়েলি আন্দোলন সংস্থা সম্প্রতি পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের সরকারের সাথে এই “দূতাবাস প্রকল্প” বাস্তবায়নের জন্য যোগাযোগ করছে, এবং অনেক দেশই এ ব্যাপারে আগ্রহী হয়েছে এবং উক্ত প্রকল্পের জন্য জায়গা বরাদ্ধ ও সুযোগ দেওয়ার নিমিত্তে চেষ্টা করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। এবং প্রাথমিক পর্যায়ের ‍আলোচনাগুলি এখন প্রক্রিয়াধীন আছে।
বিভিন্ন সরকারের কাছে প্রস্তাব করা হয়েছে যে উক্ত প্রকল্পের মাধ্যমে তার দেশ আর্থিকভাবেও বেশ লাভবান হতে পারবে। তারা ইলোহিমদের দ্বারা বিশেষ নিরাপত্তা লাভ করতে পারবে এবং অচিরেই তার দেশ আত্মিক এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির কেন্দ্র হিসেবে পৃথিবীতে স্থান করে নিতে পারবে।